বাকেরগঞ্জে পালিয়ে বিয়ে করার জেরে অপহরণ মামলা

Spread the love

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি-
বরিশালের বাকেরগঞ্জে প্রেম করে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করার অপরাধে লিটন পাল (২০) নামের এক যুবকের পরিবারকে অপহরণ মামলা দিয়ে বাড়ি ছাড়া করার অভিযোগ মেয়ের পরিবারের বিরুদ্ধে। বাকেরগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের রামনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

ভুক্তভূগী পরিবার সুত্রে জানা গেছে, লিটন পালের সাথে একই গ্রামের স্বপন কুমার পালের কণ্যা সুমি পালের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দীর্ঘ চার বছরের প্রেমের সম্পর্ককে বিয়েতে পরিণত করার জন্য চলতি বছরের ৫মে বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে তারা কোর্ট এফিডেভিডের মাধ্যমে বিয়ে করে। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে মেয়ের বাবা স্বপন কুমার পাল ৭মে বাদি হয়ে বাকেরগঞ্জ থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১২।

মামলায় প্রেমিক লিটন পাল, তার বড় ভাই অসিম পালসহ অজ্ঞাতনামা ২জনকে আসামি করা হয়। মামলার পর থেকে ভুক্তভোগী পরিবারটি বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আত্মগোপনে চলে যায়।

এদিকে শুক্রবার (৩১মে) মামলার ১নং আসামি লিটন পালকে পুলিশ গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। বয়স কম হওয়ায় মামলার ভিকটিম সুমি পালকে মেডিকেলে প্রেরণ করেন।

ছেলের বড় ভাইয়ের সুমুন্দী নিখিল পাল বলেন, ছেলে আর মেয়ে পালিয়ে আত্মগোপনে গিয়ে তারা বিয়ে করেছে। তাদের অপরাধে ছেলের বড় ভাই অসিম পালকেও মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। ছেলের পরিবার গত ২৪-২৫ দিন যাবত বাড়ি থেকে পালিয়ে আত্মগোপনে রয়েছে। এমনকি মেয়ের বাবা ও মা তাদের আত্নীয়-স্বজনকেও হুমকি ধামকি দেয়। মেয়ের পরিবার ছেলের পরিবারকে দেখে নেয়ার হুমকি দিচ্ছে।

মামলার আসামি অসিম পাল বলেন, ছেলে-মেয়ে পালিয়ে বিয়ে করেছে। এতে তাদের কি অপরাধ? আজকে অপহরণ মামলা মাথায় নিয়ে তারা বাড়ি ছাড়া হয়েছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এ বিষয়ে মেয়ের মা শীলা রানী পাল বলেন, লিটন পাল ১৫-২০ দিন আগে তার মেয়েকে বিয়ে করার জন্য তার নিকট প্রস্তাব দেয়। এতে তিনি রাজি না হলে লিটন তার মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে জোর করে বিয়ে করেছে।

বাড়ির পার্শ্ববর্তী স্বপ্না পাল ও কাকুলী রানী পাল জানান, দীর্ঘদিন থেকেই লিটন পাল ও সুমি পালের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। সেই সম্পর্ককে পাকাপোক্ত করতে তারা উভয়ের পরিবারকে না জানিয়ে পালিয়ে বিয়ে করেছে৷ অপহরণের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি। এমনকি লিটন পালের আয়ের বেশিরভাগ অর্থ সুমি পালের পরিবারের পিছনেও ব্যায় করতো বলে তারা জানান।

স্থানীয় বাসীন্দা মহেশপুর হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য মজিবুর রহমান জানান, ঘটনার দিন ৫ মে বেলা ৩.১৫ টার সময় তিনি সুমিকে একা তার বাড়ি থেকে মহেশপুর বাজারের দিকে যেতে দেখেছেন। অপহরণের মনে কোন ঘটনাই ঘটেনি। ছেলে-মেয়ের ভেতর দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক চলছে বলেও তিনি জানান।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাকেরগঞ্জ থানার এস আই মিজানুর রহমান বলেন, ছেলে-মেয়ের এ ঘটনায় একটি অপহরণ মামলা হয়েছে। মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। প্রধান আসামি লিটন পালকে আটক জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *