Logo
শিরোনাম :
ভারত থেকে দেড় বছর পর বেনাপোল বর্ডার দিয়ে দেশে ফিরল ৪ বাংলাদেশি যুবতী আটঘরিয়ায় বেতন স্কেল আপগ্রেডেশনসহ বিভিণ্ন দাবি আদায়ের লক্ষে কর্মবিরতি চাঁপাইনবাবগঞ্জে হয়রানির অভিযোগে বিজিবি ও ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ঝিকরগাছা জোনাল অফিস কমপ্লেক্সে’র শুভ উদ্বোধন….ডা. নাসির উদ্দিন এমপি চিলমারীতে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ইউনিয়ন পর্যায়ে অধ-বার্ষিকী সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত নাইক্ষ্যংছড়িতে ৭হাজার ৭শ ৭০ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার আটঘরিয়ার মাজপাড়ায় মিনি নাইট ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত খুলনা দাকোপে অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যাংক ক্যানুলা প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন বাকেরগঞ্জ পৌর নির্বাচনে শিউলিকে পুনরায় নারী কাউন্সিলর হিসেবে পেতে চায় এলাকাবাসী কলারোয়ায় মুক্তিযোদ্ধার ধর্ষিতা স্ত্রীকে দেখতে আসলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল জেনারেল এসএম মুনীর

গ্রাম-বাংলা থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী খেজুর রস

মো.মিজানুর রহমান নাদিম,বরগুনা প্রতিনিধি :

হেমন্তকাল শীতের পাশাপাশি খেজুর রসের স্বাদ আহরণের মাস হলেও এখন আর সে ঐতিহ্য নেই। হেমন্তের আগমনে পদধ্বনি পাওয়া গেলেও নেই গাছীদের খেজুর রস অহরণের তোড়জোর।

এরই মধ্যে ঋতুবৈচিত্রের ধারায় প্রকৃতিতে ফোঁটায় ফোঁটায় শিশির বিন্দু গায়ে জড়িয়ে আসতে শুরু করেছে শীত। তবে এবছরের শীতের সঙ্গে খেজুর রসের ঐকান্তিক সম্পর্ক যেন বিলুপ্তির পথে।

দেশের দক্ষিণ উপকূলের অন্যতম জেলা বরগুনা। এ জেলার আমতলী-তালতলী, পাথরঘাটা, বামনা-বেতাগীসহ বরগুনা সদর উপজেলা থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী সুস্বাদু খেজুরের রস।

এক সময়ে শীত মৌসুমের শুরুতেই গ্রামগঞ্জের মানুষরা খেজুর গাছ কাটা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়তেন। খেজুর রসে তৈরি নানা প্রকার পিঠা-পায়েস ছিল এ অঞ্চলের মানুষের নবান্নের সেরা উপহার।

রস দিয়ে তৈরি করা হতো বাটালি গুড়, ভীড় মিঠাসহ নানা রকমের মজার মজার খাবার সামগ্রী। খেজুর গাছ কাটার সাথে নিয়োজিতদের এ অঞ্চলের আঞ্চলিক ভাষায় বলা হয় শিয়ালী অথবা গাছি।

সময় বদলে যাওয়ার সাথে সাথে বদলাচ্ছে সাধারণ মানুষের জীবন প্রণালী। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে দেশের প্রচলিত সংস্কৃতি। গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য এখন অপসংস্কৃতির কাছে জিম্মি।

আমাদের সুপ্রচলিত একটি প্রবাদ হচ্ছে, আমরা ভাত-মাছে বাঙ্গালি। এক সময় এটাই ছিল বাঙ্গালী জাতির বড় পরিচয়। সে সময় ছিলো বাংলার নানা ঐতিহ্য, যেগুলো আমাদের গ্রাম বাংলাকে করেছিলো সমৃদ্ধ। কালের বিবর্তনের সাথে সাথে এখন গ্রামবাংলার বহু ঐতিহ্য বিলুপ্তির পথে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী খেজুর রস।

এ অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় সিডর, মহসিন, আইলায়,বুলবুলসহ বহু খেজুর গাছ ধ্বংস হয়েছে। এছাড়া ইটভাটায় ইট পোড়ানোর কাজে খেজুর গাছ ব্যবহার করার কারণেও এ গাছ কমে গেছে। ফলে এ অঞ্চলের খেজুর রস ও গুড় দুস্প্রাপ্য হয়ে পড়েছে। এক সময় বরগুনা জেলার আমতলী-তালতলী, পাথরঘাটা, বামনা-বেতাগীসহ বরগুনা সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করত গাছিরা। কিন্তু গত ৮-৯ বছর ধরে দক্ষিণাঞ্চলে খেজুর গাছের সংকট দেখা দেয়ায় রস পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে দিনে দিনে খেজুর রস থেকে বঞ্চিত হচ্ছে গ্রামগঞ্জের মানুষ। কয়েক বছর আগেও শীত মৌসুমে খেজুর রসের তৈরি নানা প্রকার পিঠা-পায়েসসহ সুস্বাদু নবান্নের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে উৎসাহ ও আনন্দের মধ্যে নবান্নকে বরণ করত এ অঞ্চলের মানুষরা। এখন আর খেজুর রস না পাওয়ায় নবান্নের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন গ্রামীণ সমাজের লোকজন। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ শীত মৌসুমে অতিথিদের রসের তৈরি পায়েস দিয়ে আপ্যায়ন করানোর প্রচলন এখন ভুলতে বসেছেন। গাছ কাটার কাজে ব্যস্ত বরগুনা সদর উপজেলার ১ নম্বর বদরখালী ইউনিয়নের মো. আলতাফ হোসেন জানান, গ্রামে এখন খেজুর গাছ না থাকায় শীতের আনন্দটাই হাড়িয়ে গেছে গ্রাম থেকে। অন্য এক কৃষক সহিদুল ইসলাম বলেন, এখন আমার নিজের খেজুর গাছ না থাকায় পরের গাছ কেটে রস সংগ্রহ করতে হয়। গাছের মালিককে সপ্তাহের ৩ দিন রস দিয়ে বাকি ৪ দিন আমি নিয়ে বাড়িতে বসেই বিক্রি করি,তারপরেও সবার চাহিদা মতন দিতে পারিনা। অনেক বছর ধরে গাছ কাটি,কিন্তু মৌসুমি রসের স্বাদ পেতে গাছ কাটা এখনো ছাড়তে পারিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!