Logo
শিরোনাম :
চন্দনপুর ফুটবল মাঠে গোগাকে১-০গোলে হারিয়ে নাসির একাদশ জয়ী। ঝিকরগাছায় দারিদ্র্যে হার না মানা নারী উদ্যোক্তা আনোয়ারার এবার চুঁইঝাল চাষে নতুনমাত্রা ঝিকরগাছার গদখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ধান কাটার কর্মসূচী শার্শা সাংবাদিক কল্যাণ সংস্থায় ভোরের চেতনা পত্রিকার আলোচনা সভা ব্যবসায়ী রফিক মুন্সির ব্যবসায় অবনতি, মাথায় হাত জবি উপাচার্যের সাথে সমকাল পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকের সৌজন্য সাক্ষাৎ আশাশুনিতে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে ইউএনও’র ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা আদায় পোরশায় উপনির্বাচনে নব নির্বাচিত দুই ওয়ার্ড সদস্যের শপথ গ্রহন উখিয়াতে ঝুকিপূর্ণ বাজার ব্যবস্থাপনাঃদেখা নেই অগ্নিনিবার্পক যন্ত্র পিতৃ হন্তারক ঢাকা থেকে গ্রেফতার

মাটির নিচে সোনার সুড়ঙ্গ পেল বিজ্ঞানীরা

বিবিএস নিউজ ডেস্কঃ
মাটির নিচে ৮০০ বছরের পুরোনো সোনার সুড়ঙ্গের খোঁজ পেলেন বিজ্ঞানীরা। খোঁজ মিলল যোদ্ধাদের গোপন সদর দফতরেরও। এখন শুধু খোঁড়াখুঁড়ি করে সেই সম্পত্তি তুলে আনার অপেক্ষা। উন্নত প্রযুক্তির লেজার প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই সুড়ঙ্গের খোঁজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

ন্যাশনাল জিয়োগ্রাফিক চ্যানেলের বিজ্ঞানী লিন এবং তার দল সম্প্রতি ইসরায়েলে এই সোনার সুরঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন। চ্যানেলটিতে তা সম্প্রচার করাও হয়েছে। লিন জানিয়েছেন, একাদশ শতকে ধর্মযুদ্ধের সময় ইসরায়েলের শহর একরির নিচে খ্রিষ্টান যোদ্ধারা সুড়ঙ্গ তৈরি করেছিলেন।ধর্মযুদ্ধ ছিল ইসরায়েলকে মুসলিম আধিপত্য থেকে মুক্ত করার, সেখানে খ্রিস্টধর্মের সূচনা করার। ধর্মযুদ্ধের সময় ইসরায়েলের ওই শহরই ছিল যোদ্ধাদের সদর দফতর।

সদর দফতর যাতে সহজে খুঁজে না পাওয়া যায়, তার জন্য একরি শহরের মাটির অনেকটা নিচে ওই সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়েছিল। গোপন সুড়ঙ্গ দিয়ে সদর দফতরে পৌঁছাতেন যোদ্ধারা।

এই সুড়ঙ্গ দিয়ে যুদ্ধের প্রয়োজনীয় সামগ্রী এবং সঙ্গে প্রচুর সোনা নিয়ে যেতেন যোদ্ধারা। তবে অনেক ইতিহাসবিদ মনে করেন, এই গোপন সুড়ঙ্গ সোনার মতো মূল্যবান সম্পদ নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি সেনাদের লুকিয়ে থাকা এবং বিপদে পড়লে অন্যত্র পালানোর রাস্তা হিসেবেও ব্যবহার করা হতো।
এতদিন সেই সুড়ঙ্গ এবং সদর দফতরের কথা জানা থাকলেও, তার প্রকৃত অবস্থান জানা ছিল না। এই প্রথম ৮০০ বছরের পুরোনো সেই সুড়ঙ্গের খোঁজ পেলেন বিজ্ঞানী লিন। তবে এই সুড়ঙ্গ মাটির ঠিক কতটা নিচে রয়েছে এবং তার বিস্তৃতি কতটা জায়গা জুড়ে রয়েছে তা জানার চেষ্টা এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

ইসরায়েলের একরি শহরে মাটির ওপরে থাকা খ্রিষ্টান ধর্মযোদ্ধাদের সদর দফতরের ধ্বংসস্তূপ এখনও রয়েছে। বিজ্ঞানীদের অনুমান, আরও ভালো করে খোঁড়াখুঁড়ি করলে ধর্মযোদ্ধাদের লুকিয়ে রাখা অনেক সোনা উদ্ধার করা যাবে মাটির নিচের ওই সদর দফতর এবং সুড়ঙ্গ থেকে।(কপিরাইট বাংলাদেশী নিউজ)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!