Logo
শিরোনাম :
বাঁশখালীতে শ্রমিক পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনায় আরো দুই শ্রমিকের মৃত্যু চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনায় মারা গেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হক অটো রাইস মিলের স্বত্বাধিকারী মোজাম্মেল হক সাতক্ষীরা বাঁশদাহে ১৫০ জন কৃষকদের মাঝে বীজ ধান ও সার বিতরণ আপডেট নিউজ এর ‘যুগ্ন বার্তা সম্পাদক’ হলেন অলিউল্লাহ খান বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ঘটনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১ শ্রমিকের মৃত্যু জনসচেতনতা বাড়াতে বিরামহীন ভাবে ছুটে চলা এক পুলিশ অফিসার মীর খায়রুল কবীর বরিশালে সেচ্ছাসেবী “আস্থা” সংগঠনের উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে ইফতার বিতরণ কলারোয়ায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কৃষকদের ধান কেটে দিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যম সপ্তাহ বিষয়ক সংবাদ ; প্রবন্ধ তৈরীতে পুরস্কার ঘোষণা শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের উদ‍্যোগে স্বাস্থ‍্যসুরক্ষা ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ

নিরুপায় হয়ে এবার ২২ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

স্টাফ রিপোর্টারঃ
বেশি দামের কারণে খুচরা বাজারে চাহিদা কম। অথচ মজুদ বেশি। ফলে গুদামে পচতে শুরু করেছে পেঁয়াজ। নিরুপায় হয়ে এবার ২২ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

দেশটির গণমাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, গত তিন মাস ধরে পেঁয়াজের দাম ছিল ঊর্ধ্বমুখী। এখনো ৮০ থেকে ১০০ টাকায় পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে দেশের বিভিন্ন শহরে। এর মধ্যেই মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করেছে, গুদামে পড়ে থাকা পেঁয়াজ রাজ‌্যগুলোকে আরও সস্তায় মাত্র ২২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে দেওয়া হবে। এর সুফল পাবে গরিবরা।

জানা যায়, চাহিদার কথা মাথায় রেখে গতবছরই বিদেশ থেকে এক লক্ষ ২০ হাজার টন পেঁয়াজ কেনায় অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। সেই মতো তুরস্ক, মিশর এবং আফগানিস্তান থেকে ১৮ হাজার টন পেঁয়াজ এসে পোঁছেছে ভারতে। কিন্তু মূল্যবৃদ্ধির জেরে এমনিতেই খাদ্যদ্রব্যের বিক্রিবাটা কমে গিয়েছে। তাতে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি করা যায়নি। তাই শেষমেশ পেঁয়াজের দাম আরও কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর।

কেন্দ্রীয় খাদ্য সরবরাহ মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ান এ দিন বলেন, ‘‘মোট ১৮ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানি করা হলেও, এখনও পর্যন্ত মাত্র ২ হাজার টন পেঁয়াজই বিক্রি হয়েছে। এখন ২২ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’’

রামবিলাস জানান, মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর বিভিন্ন দেশে মোট ৩৬ হাজার টন পেঁয়াজের বরাত দেওয়া হয়। তার মধ্যে ১৮ হাজার টন দেশে এসে পোঁছেছে। কিন্তু তা বিক্রি করাই অসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু কেন এমন পরিস্থিতি তৈরি হল? তার জন্য রাজ্যগুলিকেই দুষেছেন তিনি।

রামবিলাসের দাবি, ‘‘ঘরোয়া বাজারে চাহিদার জোগান দিতে এবং মূল্যবৃদ্ধিতে রাশ টানতেই বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। কিন্তু আমদানিকৃত পেঁয়াজ নিতেকিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না রাজ্যগুলি। এতে আমাদের কী করার আছে? এর পর যেন আমদানিকৃত পেঁয়াজ কেন পচছে, তা নিয়ে আদালতে না যান কেউ।’’

এখনও পর্যন্ত অন্ধ্রপ্রদেশ, কেরল, উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গই আমদানিকৃত পেঁয়াঁজ কিনেছে বলে জানিয়েছেন রামবিলাস। আবার শুরুতে আগ্রহ দেখিয়েও অনেক রাজ্য পরে অবস্থান পাল্টেছে বলেও জানান তিনি।

ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের সচিব অবিনাশ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, আগামী দু’দিনের মধ্যেই বিদেশ থেকে আরও চার হাজার টন পেঁয়াজ এসে পৌঁছবে। মাসের শেষে এসে পৌঁছবে আরও ১৪ হাজার টন। আরও সাড়ে পাঁচ হাজার টন পেঁয়াজ এসে পৌঁছনোর কথা ছিল। কিন্তু চাহিদার অভাবে শেষ মুহূর্তে তা বাতিল করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!