Logo
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় ত্রাণের দাবিতে শ্রমিকদের মানববন্ধন এবার কৃষকের ধান কেটে দিলেন উদ্ভাবক মিজান পোরশায় ৪ বিঘা বোরো ধান কীটনাশক দিয়ে ঝলসে দিয়েছে প্রতিপক্ষরা বাঁশখালীতে শ্রমিক পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনায় আরো দুই শ্রমিকের মৃত্যু চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনায় মারা গেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হক অটো রাইস মিলের স্বত্বাধিকারী মোজাম্মেল হক সাতক্ষীরা বাঁশদাহে ১৫০ জন কৃষকদের মাঝে বীজ ধান ও সার বিতরণ আপডেট নিউজ এর ‘যুগ্ন বার্তা সম্পাদক’ হলেন অলিউল্লাহ খান বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ঘটনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১ শ্রমিকের মৃত্যু জনসচেতনতা বাড়াতে বিরামহীন ভাবে ছুটে চলা এক পুলিশ অফিসার মীর খায়রুল কবীর বরিশালে সেচ্ছাসেবী “আস্থা” সংগঠনের উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে ইফতার বিতরণ

রোহিঙ্গা ক‌্যাম্পে শিক্ষন কেন্দ্রে স্থানীয় শিক্ষকেরা বেতন বৈষম‌্যের শিকার ।

নুর মোহাম্মদ সিকদারঃ উখিয়া থেকে।

কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের রোহিঙ্গা ক‌্যাম্প কেন্দ্রীক যে সব দেশী বিদেশী এনজিও রোহিঙ্গা ক‌্যাম্প কেন্দ্রীক রোহিঙ্গা শিশুদের শিক্ষন কেন্দ্রের মাধ‌্যমে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছেন সেখানে শিক্ষকদের নিয়ে চরম বেতন বৈষম‌্য হচ্ছে।মহান শিক্ষকতা পেশাকে নিয়ে যারা পরিবার পরিজন চালাচ্ছে তাদেরকে পরতে হচ্ছে আর্থিক অনটনের মধ‌্যে ।মাসের পর মাস যায় ,বছরের পর বছর যায় তাদের বেতন ভাতা সহ আনুসাঙ্গিক সুযোগ সুবিদা বাড়ছেনা।

রোহিঙ্গা ক‌্যাম্প ঘুরে শিক্ষন কেন্দ্রের একাধিক শিক্ষক শিক্ষিকার সাথে কথা বলে এসব তথ‌্য জানাযায়। কয়েকজন শিক্ষক বিনয়ের শহীদ এগনমাধ‌্যম কর্মীকে তাদের সমস‌্যা ও আর্থিক টানাপোড়নের সামাজিক যোগাযোগ সহ গণমাধ‌্যমে এক কলম লিখার আহবান জানান।যে সব এনজিও রোহিঙ্গা শিশু কিশোরদের পাঠদানের জন‌্য শিক্ষন কেন্দ্র চালু করেছেন সেখানে কর্মরত স্থানীয় শিক্ষক শিক্ষিকাদের বেতন ভাতা ১৪,৬০০ টাকার মধ‌্যে সীমাবদ্ধ ।সমুদয় বেতন ভাতা থেকে যাতায়ত,টিফিন ও চা নাস্তার খরচসহ প্রায় অর্ধেকেরও বেশি টাকাচলে যাচ্ছে প্রতিমাসে ।অবশিষ্ট ৫/৬ হাজার টাকা নিয়ে সংসার চলতে পারেকি? এসব দুরবাস্থা ও সংকট উত্তোলনে মাননীয় জেলা প্রশাসক আর আর সি ও উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ক‌্যাম্পে কর্মরত শিক্ষক মহল।

এদিকে অভিযোগ উঠেছে রোহিঙ্গা ক‌্যাম্পে শিক্ষন কেন্দ্রে প্রতিটি রোহিঙ্গা শিক্ষকদের বেতন হচ্ছে ১১ হাজার টাকা।অথচ তারা ক‌্যাম্পে বসবাস করে বিনা খরছে সন্তোষ জনক বেতন পাচ্ছে। অথচ স্থানীয় বাংলাদেশীরা বেতন বৈষম‌্যের শিকার হচ্ছে। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নজর দেওয়া অতিব জরুরি হয়ে পড়েছে বলে মনে করেন উখিয়ার নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের মহাসচিব ও সিনিয়র সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এনজিও সংস্থা মুক্তি কক্সবাজারের প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা বিমল চন্দ্রদে সরকারের মুটোফোনে যোগাযোকরা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন রোহিঙ্গাা এনজিও সংস্থা মুক্তি সহ অনেক এনজিও শিক্ষন প্রকল্প নিয়ে কাজ করছেন তারা যে ভাবে বেতন দিচ্ছে আমরাও সে ভাবেই দিচ্ছি এছাড়া আমাদের বাজেট কম।ভবিষ‌্যতে সতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ সুশিল সমাজের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট ফোরামে দাবি উঠলে বিষয়টি বিবেচনা করাহবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!