Logo
শিরোনাম :
চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিভিন্ন প্রকল্পের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে শিবগঞ্জে আওয়ামীলীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষ আহত-৫ ঝিকরগাছা শংকরপুরে রাজবাড়ীয়া যুবসংঘের উদ্যোগে ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলার আয়োজন রামুর গর্জনিয়ায় পুলিশের সাথে বাজার ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় ” অনলাইন গণমাধ্যমগুলোকে শিল্পে পরিণত করা উচিত ” আবু জাফর নারী নির্যাতন মামলায় বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তার জামিন না মজ্ঞুর করে কারাগারে প্রেরন ইমাম ওলামা পরিষদ রংপুরের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। আরপিএমপি কমিশনারের জন্মদিন উপলক্ষ্যে রংপুরের দোয়া ও এতিমদের নিয়ে নৈশ ভোজের আয়োজন রূপগঞ্জে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন মাগুরায় সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে এক পাষণ্ড স্বামী তার স্ত্রীকে ঋণদাতার হাতে তুলে দিয়েছেন বলে অভিযোগ ঝিকরগাছায় ফুল চাষীদের সাথে মতবিনিময় সভায় -জেলা প্রশাসক

অসহায় লোকদের চিকিৎসা দিয়ে বেশি আনন্দ পাই , ডাক্তার শওকত

মো.মিজানুর রহমান নাদিম,বরগুনা প্রতিনিধি :
একজন ডাক্তারের কাজ মানবসেবা করা,বরগুনা পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া বাজারে ডাক্তার শওকত হোসেন গরীব,অসহায় লোকদের জন্য ২৪ ঘন্টা চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন। ডাঃ শওকত ঝালকাঠি জেলার রাক্তাপুর উপজেলার বড়ইয়া গ্রামের মো. বেলায়েত হোসেনের ছেলে। ছাত্র জীবন থেকেই তার স্বপ্ন ছিল ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবেন। তিনি জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে বিএসসি,এমএসসি (ফাস্ট ক্লাস) এবং ডি,এম,এফ ডিগ্রী অর্জন করে মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন। তিনি গত পাঁচ বছর ধরে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন। এযাবৎ তার চিকিৎসায় হাজারও মানুষ উপকৃত হইছে।

তার চিকিৎসায় সুস্থ হওয়া রোগী রতন মিয়া জানান,আমার শরীরের বিশেষ অংশে ১টা টিওমার হয়েছিল,আমি ঢাকা বার্ডেম হাসপাতালে ডাক্তার দেখিয়েছি। ডাক্তার পরিক্ষা করে বলেছে আপনার শরীরের টিওমারটি দ্রুত অপারেশন করতে হবে।আমি বল্লাম স্যার, খরচ কতো লাগবে তিনি বল্লেন সবমিলিয়ে পঞ্চাশ হাজারের মতো। তারপর আমি ঢাকা থেকে আমার নিজ গ্রাম বামনা উপজেলার উত্তর কাকচিড়ায় চলে আসছি। কিছুদিন পরে কাকচিড়া বাজারে বাজার করতে গিয়ে হটাৎ একটু ব্যথা অনুভব হলো তখন ডাক্তার শওকতের কাছে বল্লাম, ডাক্তার সাহেব আমার শরীরে একটা টিওমার আছে খুব ব্যথা করতে আছে একটা ব্যথার ঔষধ দেন।তখন তিনি বল্লেন আপনার টিওমার কোথায় দেখি,সে দেখে বল্লেন আপনার টিওমার আমি অপারেশন করে দিতে পারি আপনি ৪৮ ঘন্টার মধ্যে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যাবেন। তখন আমি মনে মনে ভাবলাম ঢাকার ডাক্তার ৫০ হাজার চাইছে দেখি সে কতো চায়।আমি বল্লাম খরচ কতো লাগবে, তিনি বল্লেন আপনার শুধু ঔষধ কিনলেই হবে আমাকে কোন টাকা দেয়া লাগবেনা।আমি সাথে সাথে রাজি হয়ে গেলাম এবং অপারেশন করালাম এখন আমি পুরাপুরি সুস্থ গত সাতমাস ধরে বেশ ভালই আছি। তিনি আরও বলেন ডাক্তার শওকত সাহেব আছেন বলেই কাকচিড়ার মানুষের চিকিৎসার জন্য দূরদূরান্তর যেতে হয়না।

পূর্ব লেমুয়া গ্রামের দুলাল জানান,আমার টাইফয়েড জ্বর হয়েছিল।তার চিকিৎসায় আমি ভালো হয়ে গেছি। তিনি অত্যন্ত ভালো ডাক্তার তার চিকিৎসায় এরাকার মানুষ মুগ্ধ। আমার পরিবারের যেকেউ অসুস্থ হলে তাকেই দেখাই এবং তার চিকিৎসায় সুস্থ হয় দ্রুত।

ডাঃ শওকত হোসেন বলেন, ডাক্তার হয়েছি মানব সেবার জন্য।সেবার নামে ব্যবসা করতে নামিনায়,যতদিন আল্লাহ বাঁচিয়ে রাখবেন ততদিন মানুষের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাবো। তিনি আরোও বলেন,দূর এবং দূরান্তরনয় যেখানেই শুনি একটা মানুষ অসুস্থ ঠিক তখনি ছুটেযাই চিকিৎসা করে ভালো করার চেষ্টা করি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!