Logo
শিরোনাম :
লামায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ২৪টি ঘর পাচ্ছেন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী রংপুরে দুটিতে ঢোল, একটিতে জয়ী নৌকা জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র মোস্তাকের উদ্যোগে ৪ হাজার পরিবারের মাঝে পূজার উপহার বিতরন এক কৃষিপণ্য হতে ৪ বার টোল আদায়, প্রতিকার চেয়েছে কৃষকরা কলারোয়ার কেরালকাতা ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচন-২০২০” স.ম মোরশেদ আলী নৌকা প্রতীক নিয়ে ৬৮০৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল’ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস-২০২০’ উদযাপিত কলসকাঠী ইউপি উপ-নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনে পরিণত হয়েছে–ফখরুল শার্শার ফ্রি খাবার বাড়ি পরিদর্শন করলেন জেলা শিক্ষা অফিসার বাইশারীতে হাজারো মানুষের চলাচল রাস্তায় জরাজীর্ণ কালভার্টটি অভিভাবকহীন,দেখার কেউ নেই

ভোলায় দাখিল পরীক্ষার্থী ছাত্রকে ফাঁসাতে মিথ্যা ধর্ষণের সংবাদ প্রকাশের অভিযোগ

ফয়সাল আজম অপু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
ভোলা জেলার চরফ্যাসন উপজেলার নুরাবাদ ইউনিয়নে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ১৪ বছর বয়সী এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ ও ধর্ষিতা ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা, এই শিরোনামে যে সংবাদ বিভিন্ন অনলাইন ও দৈনিক আঞ্চলিক পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে তা মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বলে দাবী করেছেন সংবাদের অভিযুক্ত ও ভিকটিমের পরিবার। একইসাথে যে সমস্ত সাংবাদিকরা এই মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও মনগড়া সংবাদ প্রচার করেছে, তাদের বিরুদ্ধে মানহানি মামলার করবে বলে জানিয়েছেন উভয় পরিবারের ভুক্তভোগী অভিভাবকরা।

সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে দুলারহাটের নুরাবাদ ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ডের মোঃ তছির বেপারীর ছেলে মোঃ বাচ্চু (১৭) একই গ্রামের হত দরিদ্র পরিবারের এক কিশোরীকে নানা প্রলোভনে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করায় কিশোরী এখন ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এই সংবাদের ভিত্তিতে গত ২২ শে ফেব্রুয়ারী রবিবার ভিকটিমের পরিবার কতৃক ওই কিশোরীকে চরফ্যাসন সেন্ট্রাল ইউনাইটেড হসপিটাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে প্রেগন্যান্সি টেস্টের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ল্যাব ইনচার্জ মোঃ আবির হোসাইন কতৃক টেস্ট করার পর জানা যায় যে কিশোরী মেয়েটি আদৌ কোনো অন্তঃসত্ত্বা হয়নি এবং এ মর্মে কিশোরী ও তার পরিবারকে একটি রিপোর্ট প্রদান করা হয়েছে, সেটি এ প্রতিবেদক কে দেখিয়েছেন ভিকটিমের পরিবার।

সংবাদে প্রকাশিত বিষয়ে কিশোরী (ভিকটিম) কে এ ব্যাপারে জিগ্যাসা করা হলে তিনি প্রতিবেদক কে জানান, গত ২১ শে ফেব্রুয়ারী শুক্রবার সকাল ১১ টার দিকে ৩ জন লোক সাংবাদিক পরিচয়ে আমাদের বাড়িতে এসে আমাকে খোজ করতে থাকে, সেই সময় আমি আর আমার বড় বোন ব্যতীত বাসায় কোনো পুরুষ মানুষ ছিলো না। সেই সময় তারা আমাদের কে বিভিন্ন ভয়ভীতি ও লোভ দেখিয়ে আমাকে অন্তঃসত্তা শিকার করতে বাধ্য করার চেষ্টা করে আমি যাতে বাচ্চুর বিরুদ্ধে ধর্ষনের অভিযোগ স্বীকার করে নেই, তখন আমার বড় বোন তাদেরকে বাধা দিয়ে বলে এইরকম মিথ্যা কথা আমার বোনকে দিয়ে বলানো আপনাদের ঠিক হবেনা। এ সময় তারা আমার সাথে বিভিন্ন কথা বলার চেষ্টা করে এবং মোবাইলে ভিডিও করতে থাকে। পরে আমি লোকজনের কাছ থেকে জানতে পারি যে, অনলাইন পোর্টালে ও দৈনিক আঞ্চলিক পেপারে আমাকে ও বাচ্চুকে জড়িয়ে ধর্ষনের খবর বের হয়েছে। এ সময় কিশোরী প্রতিবেদক কে আরো বলেন, বাচ্চু আমার সম্পর্কে মামা হয়, তাকে আমি মামা বলেই ডাকি। এছাড়া তারসাথে আমার আর কোনো সম্পর্ক নাই। আমার সাথে কেউ মিলা মিসাই করেনি আমার পেটে কোনো বাচ্চা আসবে কোই থেকে, তবে যারা আমার নামে এ ধরনের মিথ্যা সংবাদ পেপারে অনলাইনে দিয়েছে আমার ও আ
মার পরিবারের মানসম্মান নষ্ট করেছে আমি তাদের বিচার চাই।

সংবাদে অভিযুক্ত মোঃ বাচ্চু বলেন, ২১ শে ফেব্রুয়ারী শুক্রবারে দুলারহাট থেকে ২ জন সাংবাদিক আমাদের বাড়িতে এসে আমাকে নিয়ে আজেবাজে কথা বলতে থাকে, এবং তারা মোবাইলে আমার ছবি তুলার চেষ্টা করে, এ সময় আমি ভয় পেয়ে চিৎকার করি, চিৎকার শুনে আমার চাচাতো বড় ভাই মোঃ শাহাবুদ্দিন (২৫) ছুটে আসে, আমি তখন ঘরের ভিতরে চলে যাই। বাচ্চু এ প্রতিবেদককে আরো বলেন, আমি এবার নুরাবাদ হোসানিয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছি, গত ২৩ শে ফেব্রয়ারী রবিবার পরীক্ষা দিতে কেন্দ্রে গেলে পরীক্ষা চলাকালীন একজন সাংবাদিক পরীক্ষার কেন্দ্রে এসে আবারো আমার ছবি তুলার চেষ্টা করে, এরকম পরিস্থিতিতে পরার কারনে আমি সেদিন ভালভাবে পরীক্ষা দিতে পারিনি। বাচ্চু আরো বলেন, গত ছয় মাস যাবত আমি পড়াশুনার ব্যাপারে ব্যাস্ত ছিলাম, এ ছয় মাস ওই কিশোরী (ভিকটিম) কে ধর্ষন করা তো দুরের কথা, তার সাথে আমার একবার ও দেখা হয়নি, আমি লোক মুখে শুনেছি আমার নামে ও পরিবারের নামে বিভিন্ন অনলাইন ও দৈনিক অঞ্চলিক পত্রিকায় এ জাতিয় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ হয়েছে আমি এসমস্ত মিথ্যা সংবাদের নিন্দা জানাই।

এ সময় বাচ্চুর চাচাতো বড় ভাই মোঃ শাহাবুদ্দিন বলেন, সাংবাদিক পরিচয়দানকারী ২ জন লোক আমাদের বাড়িতে এসে বাচ্চুর ছবি তোলার চেষ্টা করে, এ সময় বাচ্চুর চিৎকার শুনে আমি সেখানে ছুটে আসি, তখন আমি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করি আপনারা এরকম করতেছেন কেনো? তখন তাদের একজন আমাকে বললেন ১০ হাজার টাকা দিলে আমরা চলে যাবো, তা না হলে (বাচ্চু) খুব বিপদে পরে যাবে, বুঝইতো আমরা কারা।

সংবাদে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, ধর্ষনের বিষয়টি নানা উপায়ে মীমাংসার চেষ্টা সহ কিশোরীর গর্ভে আসা সন্তানটিকে নষ্ট করার জন্যে নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করে ধর্ষকের পরিবার। এ ব্যাপারে কিশোরীর বড় ভাই হাবিবুর রহমান (২২) ও বড় বোন বিবি সাফিয়া (৩০) উক্ত অভিযোগটি অস্বীকার করে বলেন আমার ছোট বোন অন্তঃসত্ত্বা তো দুরের কথা তার সাথে কোনো ধর্ষনের ঘটনাই ঘটেনি, সেখানে সমাঝোতার জন্য আমার পরিবারের উপর চাপ সৃষ্টিকরা এটা সম্পুর্ন মিথ্যা কথা।

বিভিন্ন অনলাইন ও দৈনিক অঞ্চলিক পত্রিকার সংবাদের ভিত্তিতে দুলারহাট থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোঃ ইকবাল হোসেন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিবেদক কে জানান আমি এরুপ একটি ঘটনার কথা শুনে ২৩ শে ফেব্রুয়ারি আমার ফোর্স সহ কিশোরীকে চরফ্যাশন হাসপাতালে নিয়ে প্রেগন্যান্সি টেস্ট করিয়ে নিয়ে আসছি সেখানে কোন সত্যতা পাওয়া যায় নাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!