Logo
শিরোনাম :
আশাশুনিতে সাংবাদিক সাহেব আলীর ভাইয়ের দাফন সম্পন্ন মহা নবমীতে সদরের বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে জেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ চাঁপাইনবাবগঞ্জে মারামারি মামলার আসামি মায়ের কোলে চড়ে আদালতে।। মামলা খারিজ বাঁচতে চায় শিশু নাতিশা রংপুরে ৩০ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি করছে আড়তদাররা বেনাপোল ফিলিং স্টেশনের বিক্রিত পেট্রোলে কেরোসিন মিশ্রন থাকার অভিযোগ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে এমপি শিমুলের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধন বেনাপোলে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার মাসিক সভা অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহে মৃত মানুষও পাট চাষের প্রণোদনার টাকা নিয়েছে ! নোয়াখালীর চাটখিলে এক ভূয়া সিআইডি কর্মকর্তা আটক।

ডালবুগঞ্জ ৩ পরিবারের আকুতি একটু থাকার জায়গা চাই।

ইমাম হোসেন হিমেল কুয়াকাটা প্রতিনিধি। কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জে পানি উন্নায়ন বোর্ডের ৪৭ পয়েন্ট চার ফোল্ডার হবদা রাস্তার পাশে অনেকদিন যাবত বসবাস করে আসছেন রহিম মিয়া(৭০) কালু মিয়া (৩৮) ও মতলব মিয়া (৮০)প্রায় ত্রিশ বছর যাবৎ বসবাস করছেন তারা হবদার পাশে।বড় হবদার রাস্তা সংস্কার কাজের জন্য ছেড়ে দিতে হবে তার নোটিশ এসেছে হাতে, দীর্ঘদিন যাবত থাকার এই ভিটা বসতবাড়ি তাই কিছুটা ভারসাম্য এই তিন পরিবার, থাকার মতন কোন জায়গা নেই, তাদের বাচ্চাকাচ্চা ছেলেমেয়ে নিয়ে কোথায় থাকবেন তারা এই টেনশনই কিছুটা ভারসাম্য হয়ে পড়ছে, তিনটি পরিবার তাদের আকুতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের এই শেষ সম্বলটুকু যেহেতু সংস্কারের জন্য নিয়েছে তাই আমাদের একটু থাকার জায়গা দেওয়া হোক বাহিরে এক শতাংশ জায়গা নাই নেই পা রাখার যেখানে পা রাখবো,বয়স অনেক হয়ে গেছে এখন আর সম্ভাবনা নতুন জমি কিনে বাড়ি ঘর তৈরি করা, তাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে দাবি আমাদের একটু থাকার জায়গা করে দিন । অনেক জায়গা পড়ে আছে ভূমিহীনদের কিন্তু আমরা ভূমিহীন আমরা পাইনা বড় বড় প্রভাবশালীরা দখল করে বসে আছেন, সেই জায়গাগুলো যাদের কোনো প্রয়োজনই হয়না এই জায়গা গুলো আমাদের ধরকার খুব অনেক যায়গা আছে এই জায়গা আমাদের অনেক প্রয়োজনে শেষ বয়সে হয়তো একটু থাকার জায়গা টা পেতে চাই আমরা, তাই সকল প্রতিনিধিদের কাছে আমাদের অনুরোধ আমাদের একটু থাকার জায়গা দিন। আব্দুর রহিম তিনি জানান আমরা এতদিন বসবাস করেছি এই পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গায় তাদের এত দিন প্রয়োজন হয় নাই তাই আমরা শান্তিতে বসবাস করতে পেরেছি এখন হবদা সংস্কারের জন্য তাদের এই জায়গা টুকু দরকার, তাই আমাদের চলে যেতে বলা হয়েছে এখান থেকে ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে কোথায় দাঁড়াবো সেটাই তিন পরিবারের অজানা কে দেবে একটু থাকার জায়গা আমাদের বয়সের ভারে কাজবাজ করতে পারিনা। ছেলেমেয়েদের ভালো করে লেখাপড়া করাতে পারি না এর ভিতর নতুন মাটি কিনে বাড়ি তৈরি করব কিভাবে সেই চিন্তায় হতাশ হয়ে আছি এই তিন পরিবার। মতলেব বলেন আমি আর আমার স্ত্রী আমাদের আর কেউ নেই এই যায়গা টুকু নিয়ে পড়ে আছি আমার স্ত্রী অসুস্থ কোন বেলা রান্না কোন বেলা হয়না এর মধ্যে এই বাড়ি ছারতে কি করবো বুঝতে পারছি না কি করবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!