Logo
শিরোনাম :
চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিভিন্ন প্রকল্পের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে শিবগঞ্জে আওয়ামীলীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষ আহত-৫ ঝিকরগাছা শংকরপুরে রাজবাড়ীয়া যুবসংঘের উদ্যোগে ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলার আয়োজন রামুর গর্জনিয়ায় পুলিশের সাথে বাজার ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় ” অনলাইন গণমাধ্যমগুলোকে শিল্পে পরিণত করা উচিত ” আবু জাফর নারী নির্যাতন মামলায় বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তার জামিন না মজ্ঞুর করে কারাগারে প্রেরন ইমাম ওলামা পরিষদ রংপুরের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। আরপিএমপি কমিশনারের জন্মদিন উপলক্ষ্যে রংপুরের দোয়া ও এতিমদের নিয়ে নৈশ ভোজের আয়োজন রূপগঞ্জে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন মাগুরায় সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে এক পাষণ্ড স্বামী তার স্ত্রীকে ঋণদাতার হাতে তুলে দিয়েছেন বলে অভিযোগ ঝিকরগাছায় ফুল চাষীদের সাথে মতবিনিময় সভায় -জেলা প্রশাসক

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় খুলনা জেলার ১১টি সরকারি হাসপাতালে ১৫৫টি শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

ব্যুরো প্রধান,খুলনাঃ
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় খুলনা জেলার ১১টি সরকারি হাসপাতালে ১৫৫টি শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়া খুলনা বিভাগের সরকারি হাসপাতাল এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ‘আইসোলেশন ইউনিট’ চালু করা হয়েছে। তবে খুলনায় এখনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য মেলেনি।

এছাড়া প্রতিটি হাসপাতালের বিশেষ করোনা ইউনিটে দ্রুত করোনা রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার কথা জানিয়েছেন খুলনার সিভিল সার্জন সুজাত আহম্মেদ।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে পাঁচ শয্যার ‘আইসোলেশন ইউনিট’ খোলা হয়েছে। প্রত্যেক ইউনিটে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে এই ইউনিটের প্রধান করে পৃথক টিম গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়াও সার্বিক প্রস্তুতি রয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের।

এদিকে সোমবার সকালে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার ও জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেন। এই হাসপাতালে ১০০টি শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক চিকিৎসক এটিএম মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান চিকিৎসক কামাল হোসেনকে প্রধান করে পাঁচ শয্যার ‘আইসোলেশন ইউনিট’ খোলা হয়েছে। তবে খুলনায় এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের (রোগ নিয়ন্ত্রণ) সহকারী পরিচালক চিকিৎসক ফেরদৌসী আক্তার বলেন, খুলনা বিভাগের সব হাসপাতালে বিশেষ ইউনিট চালুর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে অনেক হাসপাতালে করোনা ইউনিট চালু করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনায় বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে। করোনা ইউনিটের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভালো। সেজন্য জনসাধারণকে দীর্ঘস্থায়ী সর্দি-কাশি-জ্বর হলেই বিলম্ব না করে চিকিৎসকের কাছে আসার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এছাড়া আপাতত বিদেশভ্রমণ বন্ধ এবং বিদেশ থেকে আসা বিশেষ করে চীনা নাগরিকদের সংস্পর্শে না যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে সচেতনতার বার্তা পৌঁছাতে বলা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!