Logo
শিরোনাম :
বাগআঁচড়ায় চুরি হওয়া শিশুটি ৩ দিন পর উদ্ধার,আটক ২ ঝিকরগাছায় রঘুনাথ নগরে কম্বল, মাষ্ক ও গাছের চারা বিতরণ ঝিকরগাছার গদখালী ইউপি নির্বাচন আ’লীগের প্রার্থী হতে চান আলমগীর হোসেন মোল্লা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ও হস্তশিল্পের উদ্বোধন ঝিকরগাছায় ১৯জন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান বাঁশখালী‌তে গৃহহীনদের‌ কে ১০০ টি ঘর দি‌বে সাংসদ মোস্তাফিজ নোয়াখালীর সেনবাগে গৃহহীন ৮টি পরিবারের মাঝে জমির কবুলিয়ত দলিল ও চাবি হস্তান্তর। টাঙ্গাইলের মধুপুরে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের মাঝে নতুন ঘরসহ জমি হস্তান্তর ঘুমধুম ইউপির চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর জাল করে নানা সনদ সরবরাহ করতেন সচিব এরশাদুল হক! শার্শার বাগআঁচড়ায় ১৪০ বোতল ফেন্সিডিল সহ আটক ১

কুষ্টিয়ার ঐতিয্যবাহী বিআরবি নিয়ে করোনায় কিছু কথা।।

ফয়সাল আজম অপু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
গত ০৫.০৬.২০২০ তারিখে মোঃ সোহেল রানা কর্তৃক তার ফেসবুকে প্রদত্ত ষ্ট্যাটাস “চাকুরী যাচ্ছে ৪০০ জনের, প্রতিবাদ করায় চুরি মামলায় কারগারে যেতে হচ্ছে। ফ্যাক্ট করোনা ও বিআরবি”, এরপর গত ০৭.০৬.২০২০ তারিখ দৈনিক প্রতিজ্ঞা পত্রিকায় “আসছে প্রণোদনাঃ শ্রমিকদের জামানতের টাকা মজিবর রহমানের ঘরে। বিআরবি-র শ্রমিকরা পাচ্ছে চোর পদবী” শিরোনামে প্রকাশিত খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছে। জেনে না জেনে, হুজুকে পড়ে, ঈর্ষার্নিত হয়ে এসেছে নানাবিধ মন্তব্য – যা অত্যন্ত দুঃখজনক, আবার এসেছে অনেক পজিটিভ মন্তব্যও – যারা প্রকৃত বাস্তবতাকে অনুধাবন করতে পেরেছেন। উক্ত খবরটি ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থে সম্পূর্ণ ভুয়া, মিথ্যা, বানোয়াট ও কল্পনাপ্রসুত। যে খবরে দেশের প্রথম সারির একটি প্রতিষ্ঠানকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে। তাই এহেন মিথ্যা, বানোয়াট ও ভুয়া খবরের বিরুদ্ধে দুটি কথা না বললে দায়বদ্ধতা থেকে যাবে সারাজীবন। তা থেকেই আজকের এই লেখা।

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস আজ মহামারী ! লকডাউন এবং অচলাবস্থার কারণে বহুমাত্রিক সংকটে বাংলাদেশের শিল্প-বানিজ্য ও অর্থনীতি, পোষাক শিল্পও ধ্বংসের মুখে। আগেই বেড়েছে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী খরচ। আর এবার গোদের উপর বিষফোঁড় লকডাউনের প্রভাব। কারখানায় উৎপাদন নেই, নেই ব্যবসায় গতি, বেঁচা-কেনায় মন্দা, শিল্প-কারখানায় স্থবিরতা। অতীব সত্য, বিগত চার দশকে বাংলাদেশের অর্থনীতির ইতিবাচক ইতিহাসে সর্বোচ্চ ধ্বংসের ধাক্কা এবছর।

করোনা পরিস্থিতিতে সব চাইতে বিপাকে সীমিত আয়ের কৃষক-শ্রমিক, মুটে-মজুর শ্রেণীর মানুষ। রাস্তায় বের হলেও পাচ্ছে না কাজ, জুটছে না তিন বেলা খাবার। শহরের ঘরবদ্ধ দিনমজুর মানুষগুলো ইচ্ছে করলেই যেতে পারছে না কাজের খোঁজে বাইরে, আর গ্রামের অভাবী মানুষটি ইচ্ছা করলেই আসতে পারছে না শহরে।

বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানীখাতেও এখন ধস। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রায় এক কোটি বাংলাদেশী কাজ করেন। যার মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশ মানুষের কর্মসংস্থান মধ্যপ্রাচ্যে। রেমিটেন্স প্রবাহ এখন নিসূচকে। অনেক বাংলাদেশী বিদেশের মাটিতে বেতন পাচ্ছেন না ঠিক মতো। অনেকে চাকুরীচ্যুত হচ্ছেন, অনেকে মজুরী হ্রাসের কবলে। এছাড়াও করোনাকে ঘিরে সারা বিশ্বে চলছে লোক ছাঁটাই। ফলে রেমিটেন্স প্রবাহ আরো অবনতি হতে পারে এমন আশঙ্কাও তৈরি হয়েছে।

সব মিলিয়ে বাংলাদেশ এখন অর্থনীতির ক্রান্তিলগ্নে। করোনা পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠা কষ্টকর। এমতাবস্থায় দেশের অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান, কারখানার মালিক সরকারি সাধারণ ছুটিকালিন বেতন-ভাতা কেউ ৫০% আবার কেউ ৬০% পরিশোধ করেছেন। শতভাগ বেতন-ভাতা পরিশোধ করেছেন এমন নজির খুবই কম। অনেক প্রতিষ্ঠানের মালিক আবার ঈদ বোনাসও ঠিকমত দেননি।

আর এসব টানা-পোড়েনের মধ্যেও নজীর স্থাপন করেছে কুষ্টিয়ার বিআরবি গ্র“প। জানা গেছে, বি আর বি গ্র“প এদের সকল প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত সকল শ্রমিক, কর্মচারী, কর্মকর্তাকে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি প্রদান করেছে এবং কর্মকান্ড বন্ধ রেখেও সকলকে শতভাগ বেতন পরিশোধ করেছে। লকডাউন বা সাধারণ ছুটির প্রায় তিন মাসে আনুমানিক ৫০ কোটি টাকা পরিশোধ করেছে। তাছাড়াও পরিশোধ করেছে শতভাগ ঈদ বোনাসও। শুধু তাই নয়- সাধারণ ছুটিকালীন সময়ে নিরাপত্তার স¦ার্থে কিছু নিরাপত্তা কর্মী, জরুরী দাপ্তরিক কাজে কিছু কর্মচারী ও কর্মকর্তা এবং রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য কিছু শ্রমিক, কর্মচারী, কর্মকর্তা ডিউটি করেন। পরিবর্তে নিয়মিত বেতন ভাতাদি পরিশোধ ছাড়াও অতিরিক্ত কাজের জন্য তাদেরকে মাসিক বেতনের সমপরিমান হারে অতিরিক্ত কাজের মজুরী পরিশোধ করেছে প্রতিষ্ঠানটি ।

এতে করে প্রতিষ্ঠানটি নির্দিষ্ট বেতন-ভাতাদি বাবদ আনুমানিক ৫০ কোটি টাকা এবং ঈদ বোনাস পরিশোধের পাশাপাশি আরও অতিরিক্ত প্রায় কোটি টাকা প্রদান করেছে অতিরিক্ত কাজের মজুরী হিসাবে। প্রণোদনার বিষয়ে বলতে হয়, যদি প্রতিষ্ঠানটি সরকার কর্তৃক প্রণোদনা পেত তাহলে অবশ্যই তা প্রদান করতো। উল্লেখ্য, এই করোনার কারণে দুঃখী ও আর্তমানবতার সেবায় প্রতিষ্ঠানটি কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে সরকারি ত্রাণ তহবিলেও সাধ্যমত আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেছেন।
বলাবাহুল্য, বি আর বি গ্র“প সরকার ঘোষিত যে সাধারণ ছুটি (উক্ত সাধারণ ছুটির মধ্যে সাপ্তাহিক ছুটি, উৎসবছুটি সহ বিভিন্ন ছুটি পড়েছে) তাদের শ্রমিক, কর্মচারী, কর্মকর্তাকে প্রদান করেছেন তা কিন্তু কোন দায়বদ্ধতা বা বাধ্যবাধকতা থেকে নয় – কেননা শিল্প কারখানার জন্য এ ছুটি প্রযোজ্য ছিল না। কেননা কারখানা আইন সম্পূর্ণ আলাদা। তাই লোকাল প্রশাসন থেকেও বি আর বি কর্তৃপক্ষকে কারখানা খোলার জন্য বলেছিলেন। কিন্তু বি আর বি কর্তৃপক্ষ তাদের শ্রমিক, কর্মচারী, কর্মকর্তাদের জানমালের নিরাপত্তা ও স¦াস্থ্য ঝুঁকির কথা চিন্তা করে প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি স¦ীকার করেও মানবতার দায়বদ্ধতা থেকে উক্ত সাধারণ ছুটি প্রদান করেছেন।
একটা উদাহরণ আছে যে, চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী, তাই এত কিছুর পরও কিছু মানুষ বুঝে-শুনে ও অন্যের প্ররোচনায় পড়ে কুৎসা রটনা করছেন যে, ‘করোনা’র কারণে বিআরবি’র চারশত জনের চাকুরী যাচ্ছে’। আমরা কুষ্টিয়াবাসী সকলেই জানি বা খুব কাছ থেকে দেখছি – বিআরবি গ্র“প একটি বৃহৎ শিল্প সাম্রাজ্য। আজ বিসিক শিল্প নগরী সর্বদা মানুষের কোলাহলে মুখরিত তা শুধু বি আর বি গ্র“পের শিল্প প্রতিষ্ঠান সমুহের কারণেই। এখানে হাজার হাজার মানুষ চাকুরী করে তাদের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছেন। বাহিরের জেলা থেকে কেহ কুষ্টিয়ায় এসে যদি বি আর বি না দেখে যায় তার যেন কুষ্টিয়া ভ্রমনই ব্যর্থ। তাই দেশের বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান তাদের শিক্ষা সফরের প্রধান আকর্ষণ হিসাবে বিআরবি কে বেছে নেয়। এটা কুষ্টিয়াবাসীর জন্য গর্বের বিষয়।

একটি শিল্প সাম্রাজ্য চালাতে গেলে যেমন থাকবে শিল্পের উন্নয়নে শ্রমিকদের প্রতি ভালবাসার ছোঁয়া, তেমনি প্রশাসনিক ভাবমূর্তি ঠিক রাখতে থাকবে আইনের শাসন। তবেই না কোন প্রতিষ্ঠান উঠতে পারে উন্নতির চরম শিখরে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!