Logo
শিরোনাম :
নারী সাংবাদিককে লাঞ্চিত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশকে কঠোর হওয়ার নির্দেশ- হার্ডলাইনে নির্বাচন কমিশন বাকেরগঞ্জের জনদরদী ও সফল ইউপি চেয়ারম্যান বশির উদ্দীন শিকদার খুলনায় তালাবদ্ধ শিশুর মৃত্যুতে ২ জনকে আসামি করে মামলা পঞ্চগড়ে এশিয়ান টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কালের চিত্র পত্রিকার সাংবাদিক ফারুক সড়ক দূর্ঘটনায় আহত। কেশবপুরে পুকুরে বিষ প্রয়োগ লক্ষাধিক টাকার মাছের ক্ষতি নাচোলে শ্রমিক লীগের আয়োজনে বিশাল কর্মী সমাবেশ আশাশুনিতে উপজেলা চেয়ারম্যানকে সাস এর পক্ষ থেকে নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় ঝিকরগাছায় শিক্ষার্থী ধর্ষণ : পিস্তলসহ ধর্ষক আটক

প্রকৃতি থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বর্ষার ফুল কদম

জসিম উদ্দিন,বিশেষ প্রতিনিধি:ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। আর বাঙালির প্রিয় ঋতু বর্ষা। সেই সাথে বর্ষার আগমন ঘটে অসাধারণ মনোমুগ্ধকর কদম ফুল ফোটার মধ্যে দিয়ে।

তাইতো কদম ফুলকে বলা হয় বর্ষার দূত। আষাঢ়ের শুরুর আগে থেকে এবার বর্ষাকাল শুরু হয়েছে। গাছে গাছে ফুটতে শুরু করেছে সুন্দরী বান্ধব কদম ফুল।

বহু বিখ্যাত কবিতা ও গান রয়েছে বর্ষাকাল আর কদম ফুল নিয়ে। প্রিয় ঋতু বর্ষার আগমনে তাই কদম ফুল যেন অনিবার্য অনুষঙ্গ।

সারাদেশে শহর থেকে শুরু করে গ্রামে-গঞ্জে বিশালকার কদম গাছে ফুটতে থাকে শত শত গোলাকৃতির কদম ফুল। সবুজ পাতার মাঝে সাদা হলুদ ফুল পথচারীদের নজর কাড়ে। কেউ কেউ কচি ফুল সংগ্রহ করে প্রিয়জনকে উপহারও দেন। বেশ কয়েকদিন গাছে ফুটে থাকার পর মলিন হয়ে পড়ে এই ফুল।

এই ফুল সম্পর্কে আরো জানা যায়, কদম ফুলের আরেক নাম হল নীপ। ফুলের সৌন্দর্যের মতো আরও কয়েকটি সুন্দর নাম রয়েছে- যেমন বৃত্তপুষ্প, সর্ষপ, ললনাপ্রিয়, সুরভি, মেঘাগমপ্রিয়, মঞ্জুকেশিনী, কর্ণপূরক, পুলকি, সিন্ধুপুষ্প ইত্যাদি।

কদম বর্ণে, গন্ধে, সৌন্দর্যে এদেশের ফুল গাছগুলোর মধ্যে অন্যতম। গাছের উচ্চতা হয় সাধারনত ৪০ থেকে ৫০ ফুট। এর বৈজ্ঞানিক নাম : Anthocephalus indicus. আদি নিবাস ভারতের উষ্ণ অঞ্চল, চীন ও মালয়ে।

কদম গাছের পাতা লম্বা, উজ্জ্বল সবুজ ও চকচকে। বসন্তের শুরুতে গাছে নতুন পাতা গজায় এবং শীতে গাছের পাতা ঝরে যায়। কদম ফুল গোলাকার।

পুরো ফুলটিকে একটি ফুল মনে হলেও এটি আসলে অসংখ্য ফুলের গুচ্ছ। এ ফুলের ভেতরে রয়েছে মাংসল পুষ্পাধার, যাতে হলুদ রঙের ফানেলের মতো পাপড়িগুলো আটকে থাকে। পাপড়ির মাথায় থাকে সাদা রঙের পরাগদণ্ড। ফল মাংসল, টক এবং বাদুড় ও কাঠবিড়ালির প্রিয় খাদ্য। ওরাই বীজ ছড়ানোর বাহন।

কদম নামটি এসেছে সংস্কৃত নাম কদম্ব থেকে। প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে কদম ফুলের আধিপত্য। মধ্যযুগের বৈষ্ণব সাহিত্যেও কদম ফুলের সৌরভমাখা রাধা-কৃষ্ণের বিরহগাথা রয়েছে।

ভগবত গীতাতেও রয়েছে কদম ফুলের সরব উপস্থিতি। কদম ফুলের রয়েছে নানা উপকারিতা। কদম গাছের বাকল জ্বরে উপকারী, পাতার রস কৃমিতে ব্যবহার্য। বাকল ও পাতা ব্যথানাশক। মুখের ঘায়েও পাতার রস কার্যকরী। কদম গাছের কাঠ দিয়ে তৈরি হয় দিয়াশলাই।

তাই একটু জোরেশোরেই বলা যায় প্রকৃতি এক মূল্যবান বন্ধু এই কদম ফুল গাছ। সেই বহুগুণে গুণান্বিত কদম গাছ আজ হারিয়ে যেতে বসেছে প্রকৃতি থেকে। দিনে দিনে বিলুপ্ত প্রায় এই গাছ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!