Logo
শিরোনাম :
সেহরি না খেয়ে রোজা, জেলা প্রশাসকের কাছে চাইলেন খাবার  নিজস্ব অর্থায়নে যুবলীগ নেতা মুফিদুল আলম মুফিজের মাস্ক বিতরণ নাটোরে পর্নোগ্রাফি সংফক্ষন ও সাপ্লায়ের দায়ে পাঁচ কম্পিউটার ব্যাবসায়ী আটক রাণীশংকৈলে দোকান পাট খোলা রাখায় ও মাস্ক না পড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা বাবার মৃত্যু বার্ষিকীতে ছেলের স্মৃতি চারণ বেনাপোল পোর্ট থানায় ২ কেজি গাঁজা সহ আটক ১ গাজীপুরের গাঁছা থানা এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবককে হত্যার চেষ্টা বাইশারীতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঘর নির্মাণে কোন অনিয়মের সত্যতা পাননি ইওএনও শার্শায় মোট নমুনা সংগ্রহ ২০১৪, পজিটিভ ৩৩৩, মোট সুস্থ্য ৩১০, মৃত্যু ৩, নতুন আক্রান্ত ১ চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট-গোমস্থাপুর সড়কে আবারও ডাকাতি।। রেহাই পেলোনা গরীব ভ্যান চালক

কোভিড-১৯ ঠেকাতে মাঠে প্রশাসন : নানান অযুহাতে মাষ্ক পরছেনা সাধারণ মানুষ

জসিম উদ্দিন, নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে দেশ ব্যাপী মাঠে নেমেছেন প্রশাসনের বিভিন্ন ইউনিট। জনসাধারণের মাঝে মাষ্ক বিতরণ এবং মাষ্ক ব্যবহারের জন্য সচেতনতা মুলক লিফলেট বিতরণ সহ বিভিন্ন উদ্বুদ্ধ করণ প্রচার করছেন তারা। তারপরও অসচেতন জনগন যেন মাষ্ক পরতেই চাইনা।

কারও মুখে লাগে গরম, কেউ পরতে ভুলে যান, কেউ-বা সঙ্গে করে আনেননি। মাস্ক না পরার অজুহাতের যেন শেষ নেই এইসব মানুষের।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মাস্কের কোনো বিকল্প নেই। সরকারের নির্দেশনাক্রমে ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ জারি করলেও সেখানেও রয়েছে চরম অনিহা। সব মিলিয়ে এখনো মানুষের মধ্যে মাস্ক না পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে বড় ধরনের ঢিলেঢালা ভাব রয়েছে।

জনসাধারণকে মাস্ক পরা বাধ্য করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে মাষ্কের শতভাগ ব্যবহারের জন্য। তারপরও জনসমাগম এলাকাগুলোতে চোখ বুলালে দেখা যায় মাষ্ক ব্যবহার করতে তাদের যেন কেউ বলেইনি।

এক দিকে প্রশাসনের কর্মকর্তারা মাষ্ক বিতরণ করে সার্বক্ষনিক সেটা ব্যবহারের জন্য বলছে। অন্যদিকে প্রশাসন চলে যাওয়ার পরেই তা খুলে পকেট বন্দি করছে অসচেতন মানুষেরা। ঘরের বাইরে বের হলেও কোন ভাবেই যেন মাষ্ক পরতে রাজি নন তারা।

ছোট বড় বাজার, শপিংমল, বাস চালক, মটরভ্যান চালক সাধারণ যাত্রী কিংবা পায়ে হেটে চলাচলরত কোন মানুষের মুখে মাষ্ক পরার বালাই নেই। যে যার ইচ্ছে মতো খালি মুখে দেদারসে চলাচল করছে।

সরকারী পদক্ষেপ এবং করোনা ভাইরাসের কোন রকম তোয়াক্কা করছে না গুটিকয়েক মানুষ ছাড়া। ফলে দিনে দিনে বেড়েই চলেছে করোনার ভয়াবহতা। এমতাবস্থায় সরকার তথা প্রশাসনের কঠোর ভূমিকা রাখবে আহবান করছেন সচেতন মহল।

পাশাপাশি প্রশাসনের নজরদারীর সাথে সামাজিক সকল সংগঠনকে কোভিড-১৯ ঠেকাতে আবারও মাঠে নামতে হবে বলে মনে করেন অনেকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!