Logo
শিরোনাম :
নিজস্ব অর্থায়নে যুবলীগ নেতা মুফিদুল আলম মুফিজের মাস্ক বিতরণ নাটোরে পর্নোগ্রাফি সংফক্ষন ও সাপ্লায়ের দায়ে পাঁচ কম্পিউটার ব্যাবসায়ী আটক রাণীশংকৈলে দোকান পাট খোলা রাখায় ও মাস্ক না পড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা বাবার মৃত্যু বার্ষিকীতে ছেলের স্মৃতি চারণ বেনাপোল পোর্ট থানায় ২ কেজি গাঁজা সহ আটক ১ গাজীপুরের গাঁছা থানা এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবককে হত্যার চেষ্টা বাইশারীতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঘর নির্মাণে কোন অনিয়মের সত্যতা পাননি ইওএনও শার্শায় মোট নমুনা সংগ্রহ ২০১৪, পজিটিভ ৩৩৩, মোট সুস্থ্য ৩১০, মৃত্যু ৩, নতুন আক্রান্ত ১ চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট-গোমস্থাপুর সড়কে আবারও ডাকাতি।। রেহাই পেলোনা গরীব ভ্যান চালক আশাশুনিতে প্রশাসনের তৎপরতার মধ্যদিয়ে লকডাউন চলছে

প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের ঘড়ের জন্য ২০ হাজার করে টাকা আত্মসাৎ চেয়ারম্যানের

মোঃ ইব্রাহীম খলিল,বিশেষ প্রতিনিধিঃ
রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার ৩ নং নবাবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসান আলীর বিরুদ্ধে সরকারী ঘরের জন্য ঘর প্রতি ২০ হাজার করে টাকা আত্নসাৎ এর অভিযোগে উঠেছে।

রাজবাড়ীর দুই সাংবাদিক তথ্য সংগ্রহ করতে যায়। দৈনিক আমার বার্তা ও দৈনিক বর্তমান কথার সাংবাদিক বিধান কুমার বিশ্বাস এবং দৈনিক সংগ্রাম প্রতিদিনের সাংবাদিক রাসেল। ও স্থানীয় সাংবাদিক মোঃ আদম আলী।

তথ্য সংগ্রহ করে ঐ দুই সাংবাদিক চলে যাওয়ার পরে সন্ধায় স্থানীয় সাংবাদিক আদম আলীর উপর হামলা করে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসান আলীর নির্দেশে একই ইউনিয়নের ত্রিলোচানপুর গ্রামের রহিম মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া।

এ বিষয়ে সাংবাদিক আদম আলীকে মোবাইল ফোনে ফোন করে জানতে চাইলে তিনি অপরাধ ডটকমকে জানান, রাজবাড়ী থেকে দুইজন সাংবাদিক সোনাপুর বাজারে আসেন আমার সাথে দেখা দেখা হলে আমরা একসাথে বসে চা খাই। চা খেতে খেতে সাংবাদিকেরা আমার কাছে জানতে চায় যে আপনি কি রহিম মিয়া কে চিনেন। আমি বললাম হ্যাঁ এবং তখনেই রহিম মিয়াকে দেখিয়ে দেই।

পরে তারা চা দোকান থেকে বের হয়ে রহিম মিয়াকে প্রশ্ন করে চেয়ারম্যান আপনাকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের ঘর দিয়ে চেয়ারম্যান কত টাকা নিয়েছে। তখন রহিম মিয়া নিজের ইচ্ছায় বলে মোট ৮০ হাজার টাকা দিয়েছি এবং আমার ফকির একটা বোন আছে সেও ২০ হাজার টাকা দিয়েছে।

সাংবাদিক আদম আলী আরও বলেন এই তথ্য নিয়ে সাংবাদিকেরা চলে যায়। এর পরের দিন সন্ধার সময় জুয়েল মিয়া আমাকে তার দোকানে ডেকে নিয়ে ভিতরে আটকে রাখে আমি বাহিরে বের হয়ে আসতে চাইলে জুয়েল মিয়াসহ চার পাঁচজন মিলে আমাকে বেদম মারপিট করে।

খবর পেয়ে আমার তিন ভাই সেখানে ছুটে আসলে তাদেরও মারপিট করা হয় এবং দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমার এক ভাইয়ের হাতে কোপ দেয়, এতে সে রক্তাক্ত জখম হলে স্থানীয় পল্লিচিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করা হয়, অবস্থা খারাপ হলে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় পরে সার্বিক নিরাপত্তার জন্য কালুখালী উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হামলা করেও ক্ষ্যান্ত হয়নি ঐ চেয়ারম্যান বাহিনী। আদম আলী ও তার তিন ভাইসহ ভাইয়ের বন্ধুকে আসামী করে বালিয়াকান্দি থানায় একটি হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!