Logo
শিরোনাম :
সাংবাদিক ফয়সাল রাকিব’র জন্মদিন উদযাপন নওগাঁর পোরশা বিষ্ণপুর গ্রামে BNP এর জোড়পূর্বক হাসুয়া রামদার ভয় দেখিয়ে জমি দখল শার্শার বিশিষ্ট বস্ত্র ব্যাবসায়ীর আকষ্মিক মৃত্যু নদী ভাংঙ্গ মেঘনা পাড়ের মানুষের কাছে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম আম রাজ্যের তিন রাজার গল্প নাইক্ষ্যংছড়ি বাজার কখন সিসি ক্যামরার আওতায় আশাশুনির গুনাকরকাটি দরবার শরীফ মসজিদের দানবক্স থেকে টাকা চুরি চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে মিথ্যা মামলার নিষ্পত্তি চায় এলাকাবাসী রূপগঞ্জে সাংবাদিকের রিয়াজের উপর সন্ত্রাসী হামলা, অবস্থা আশঙ্কাজনক ঝিকরগাছা বড়পোদাউলিয়ায় রাস্তা দখল করে প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ

শিশু নাহিদের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন রংপুরের পুলিশ সুপার

আফরোজা সরকার,রংপুরঃ
অর্থের অভাবে শিশু নাহিদের (৩) চিকিৎসা দিনমজুর পিতা করতে না পারায় চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন রংপুরের পুলিশ সুপার।শিশু নাহিদের বাড়ি নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার চিলাহাটি এলাকায়। নাহিদের বাবা দিন মজুর নুর ইসলামকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক জানান নাহিদের দ্রুত চিকিৎসা করাতে না পারলে তার হাত কেটে ফেলতে হবে।চিকিৎসকের কথায় দিশেহারা হয়ে  পড়েন । বিষয়টি জানতে পেরে রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার নাহিদের অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন ও  নীলফামারী জেলার  ডোমার উপজেলার  চিলাহাটির বাসিন্দা নুর ইসলমের সাথে। নাহিদের বাবা পুলিশ সুপাকে জানান এ অবস্থায় শিশুটির হাত কেটে ফেলার সিদ্ধান্তদিয়েছেন চিকিৎসক। অসহায় দিনমজুর বাবার এমন দুর্দিনে পাশে দাঁড়িয়ে  চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি গতকাল সোমবার রাতে ওই শিশুসহ তারপরিবারের৪সদস্যকে ঢাকায় পাঠিয়েছেন। অস্ত্রো পচার, ওষুধ সহ চিকিৎসার  সব খরচ বহন করবেন তিনি।
নুর ইসলামের  দ্বিতীয় সন্তান নাহিদ ৩ মে পাশের বাড়ির উঠানে থাকা ধান ভাঙা মেশিনে হাত ঢুকিয়ে দেয়। এতে তার ডান হাতের কবজি থেকে আঙুলের মাঝের অংশ উঠে আসে। তর্জনীর শিরা ছিড়ে যাওয়াসহ কনুই থেকে হাড়ের বিভিন্ন অংশ ফেটে যায়। তাকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।
নুর ইসলাম বলেন, চিকিৎসক জানিয়েছেন,নাহিদের চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। দিন মজুরি করে সংসার চালাতেই হিম সিম অবস্থা। এরই মধ্যে অনেক ঋণ করে ফেলেছি। সন্তানের চিকিৎসার টাকা জোগাড় করতে না পেরে চিন্তিত ছিলাম। এসপি স্যার চিকিৎসার সব খরচ বহন করবেন। তিনি আমার পাশে না দাঁড়ালে আমার বাচ্চার হাত কেটেই ফেলতে হতো।
পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, দিনমজুর নুর ইসলাম অর্থের অভাবে সন্তানের চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। এঅবস্থায় নাহিদকে সুস্থ করে তার বাবার মুখে হাসি ফোটাতে পারলেই আমার সার্থকতা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!