Logo
শিরোনাম :
দোহার নয়াবাড়ি ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড শাখা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন চিত্রনায়িকা পরিমনিকে ধর্ষণের চেষ্টা আদমদীঘি সান্তাহারের হোটেল স্টার দখল নেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ বাঁশখালী থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ৫ গ্রেফতার মাদকের বিরোদ্ধে সবাই ঐক‌্যবদ্ধ হউন, ঘুমধুমে পুলিশ সুপার জেরিন আক্তার বেড়ায় আ,লীগ নেতা হত্যা মামলার আসামি ও বালুদস্যু ফজরের নামে মামলা কেশবপুরে ইউনিয়ন পর্যায়ে মৎস্য চাষীদের মাঝে উপকরণ বিতরণ আশুলিয়ায় বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ; পুলিশের ধাওয়ায় নিহত -১ আশাশুনির কেয়ারগাতি বেড়ীবাঁধের জরাজীর্ণ অবস্থা জরুরী অক্সিজেন সেবা চালু করলো এক্স স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন আফ সাতক্ষীরা গভ.হাই স্কুল

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭ দিনের লকডাউনে ৫ম দিনেও প্রশাসনের ব্যপক তৎপরতা;মফস্বলে সচেতনতা কমেছে

ফয়সাল আজম অপু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকেঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের বিশেষ লকডাউন বলবৎ আছে। শনিবার (২৯ মে) বিশেষ লকডাউনের ৫ম দিন। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় করোনায় ৪ জনের প্রাণ গেলেও বাড়েনি জনাসাধারণে সচেতনতা।

লকডাউনের ৫ম দিনে জেলা শহরেরর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে পুলিশের চেকপোস্ট ছিলো। অকারণেই বের হলে পড়তে হচ্ছে জেরার মুখে। প্রয়োজনের জন্য যারা ঘর থেকে বের হচ্ছে তারা অবাধে চলাচল করতে পারছে।এদিকে পাড়া মহল্লায় ছাউনির নিচে গল্পতে সরব ছিলেন গ্রামাঞ্চলের বাসিন্দারা। সরজমিনে ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শহরের সড়কগুলো ছিলো সুনসান। কিন্তু চায়ের দোকান খুলে ভিতরের আলাপে ব্যস্ত মানুষ। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার চরমোহনপুর এলাকার বাসিন্দা আঃ আজিজ বলেন; “জেলা শহরে লকডাউন চললেও গ্রামাঞ্চলে বাড়েনি সচেতনতা। আমার এলাকায় বিপণি বিতানসহ সব ধরনের দোকান পাট খোলা আছে। পুলিশ এলাকায় আসলে তড়িঘড়ি করে দোকানবন্ধ করে পালিয়ে যায় দোকানিরা”।

এদিকে শিবগঞ্জ পৌর এলাকার ইসরাইল মোড়ে সব ধরনের দোকান পাট খোলা ছিল। লকডাউন দেখার জন্যেও উৎসুক জনতার ভীড়ও ছিল।তাদেরকে ঘর থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তারা জানান “আমরা সারাদিন ঘরে থাকি। সকাল হলেই আগের নিয়মে আড্ডা দেয়ার অভ্যাস টাতো ইচ্ছে করলে ভূলতে পারিনা।” তাদেরকে জেলায় করোনার মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ার কথা বললে তারা জানান- “যার যতদিন হায়াত আছে সে ততোদিন বাচঁবে। কেউ তার মরণ ঠেকাতে পারবে না।”

একই জায়গায় কয়েকটি রিক্সা, ভ্যান, ব্যাটারি চালিত ছোট যানগুলো দাড়িয়ে ছিলো। তারেদকে যান চলচলের নিষিদ্ধ থাকার কথা বললে তারা জানান- “প্রশাসন গাড়ি চলাচল বন্ধ করেও তারাতো এক বেলার খাবারও ঘরে দিয়ে যায় না। বাড়িতে খাবার না থাকলে কি খেয়ে দিন পার করবো। তার চেয়ে গাড়ি ভাড়া মেরে যা আয় হয়, পরিবারকে খাওয়ায়ে মরতে পারলে প্রাণে বাঁচবো।”

এদিকে জেলার কঠোর লকডাউনের কারণে বাজারগুলোতে ভীড় না দেখা গেলেও, ক্রেতা ও বিক্রিতার কোন স্বাস্থ্য বিধির বালাই ছিলনা। মুখে মাক্স না থাকা এক সবজি বিক্রেতাকে মাক্স না থাকার কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান, আর কতক্ষণ মাক্স মুখে দিয়ে থাকবো, এদিকে ভ্যাপসা গরম। আরেক দিকে করোনার প্রকোপ। সবদিক দিয়ে বিবেচনা করেই চলতে হচ্ছে।আমার কাছে কোন ক্রেতা আসলে মুখে মাক্স দিয়েই তার কাছে সবজি বিক্রি করি।”

সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদ নজরুল চৌধুরী জানান – “জেলায় ৭ জনের ভারতের করোনার ধরণ পাওয়া গেছে এটা শুনেছি। তিনি আরোও জানান- “ সর্বশেষ করোনার রিপোর্ট পাওয়া সুত্র অনুযায়ী করোনা আক্রান্ত কেউ ছিলনা। মোট করোনায় আক্রান্ত ১৫৬৭ জন। নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ জন। মোট করোনায় মারা গেছেন ৩২ জন। করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ১৯ জন ভর্তি আছে। ২৫ মে জেলায় করোনা সনাক্তের হার ৬০% ছিলো, বর্তমানে করোনা সংক্রমোণের হার ৩৪% আছে।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!