Logo
শিরোনাম :
সাংবাদিক ফয়সাল রাকিব’র জন্মদিন উদযাপন নওগাঁর পোরশা বিষ্ণপুর গ্রামে BNP এর জোড়পূর্বক হাসুয়া রামদার ভয় দেখিয়ে জমি দখল শার্শার বিশিষ্ট বস্ত্র ব্যাবসায়ীর আকষ্মিক মৃত্যু নদী ভাংঙ্গ মেঘনা পাড়ের মানুষের কাছে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম আম রাজ্যের তিন রাজার গল্প নাইক্ষ্যংছড়ি বাজার কখন সিসি ক্যামরার আওতায় আশাশুনির গুনাকরকাটি দরবার শরীফ মসজিদের দানবক্স থেকে টাকা চুরি চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে মিথ্যা মামলার নিষ্পত্তি চায় এলাকাবাসী রূপগঞ্জে সাংবাদিকের রিয়াজের উপর সন্ত্রাসী হামলা, অবস্থা আশঙ্কাজনক ঝিকরগাছা বড়পোদাউলিয়ায় রাস্তা দখল করে প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ

আশাশুনিতে থানা পুলিশের অভিযানে আটক ৩

বি এম আলাউদ্দীন, আশাশুনি প্রতিনিধি:
আশাশুনি থানা পুলিশের অভিযানে একজন নিয়মিত মামলার আসামী ও দুইজন ওয়ারেন্টের আসামীকে আটক করা হয়েছে। থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ গোলাম কবির এর নেতৃত্বে মঙ্গলবার এসআই সফিউল্লাহ মোল্যা সঙ্গীয় ফোর্স এর সহায়তায় নিয়মিত মামলা ৪(৬)২০২১ এর আসামী উপজেলার খরিয়াটি গ্রামের মৃত মুন্সি কেরামত আলীর ছেলে আবুল কালাম গাজীকে খরিয়াটি এলাকা হতে আটক করেন। অপরদিকে, এএসআই নাজিম উদ্দীন সঙ্গীয় ফোর্স এর সহায়তায় সিআর-১৪১/১৯ ওয়ারেন্টমূলে খলিসানী গ্রামের সহিদ গাজীর ছেলে সেলিম গাজী ও সিআর-২৯৩/১৯ ওয়ারেন্টমূলে মোক্তার সরদার এর ছেলে সিরাজুল সরদারকে তাদের নিজ নিজ বাড়ী হতে আটক করেন। আটককৃত আসামীদেরকে বিচারার্থে বুধবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

আশাশুনিতে পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা বিপাকে

বি এম আলাউদ্দীন, আশাশুনি প্রতিনিধি:
যে কোন জিনিসের সীমা পরিসীমা থাকে। মানুষ সীমার মধ্যে থাকলে তা মেনে নিতে বাধ্য হয়। কিন্তু সীমাহীন ও অসহনীয় কোন কিছু মানুষকে চরম দুঃখ ও কষ্টের মধ্যে ফেলে রাখে। পল্লী বিদ্যুতের ব্যবহার আশাশুনির গ্রাহকদেরকে এমনই পরিস্থিতির মুখোমুখি করে তুলেছে। ফলে বিদ্যুৎ গ্রাহকদের অভিব্যক্তি ও উদগীরিত প্রতিবাদের ভাষাও কষ্টের শেষ প্রান্ত স্পর্শ করে বের হচ্ছে। উপজেলার মানুষ যুগযুগ ধরে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছে। বিদ্যুৎ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের হাত বদলও দেখেছে তারা। তাদের ব্যবহার, বিদ্যুতের সেবাদান এবং ঝড়-বৃষ্টি, রৌদ্র-শীত, কৃষিক্ষেতে বিদ্যুতের চাহিদা অনেক কিছুর স্বাক্ষী আজকের গ্রাহকরা। সরকার কোটি কোটি মানুষের নতুন করে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে, আবার রেকর্ড পরিমাণ বিদ্যুতের উৎপাদনও বাড়িয়েছে। আগে বিদ্যুৎ গ্রাহক কমছিল, বিদ্যুৎ কর্মীও ছিল খুবই সামান্য। বর্তমানে গ্রাহক বেড়েছে, অনেকগুণ কর্মীও বেড়েছে। বেড়েছে বিদ্যুৎ উৎপাদন। সেবার মানও অনেক ক্ষেত্রে বেড়েছে। কিন্তু মেঘ দেখলে বিদ্যুৎ উধাও, বৃষ্টি হলে বিদ্যুতের প্রস্থান, ঝড় হলে বিদ্যুতের গহীনে পলায়ন এবং ঘন্টার পর ঘন্টা নয় বরং দিনের পর দিন বিদ্যুতের দেখা না পাওয়া। দিনের মধ্যে শত শত বার বিদ্যুতের আনাগোনা, মাত্র কয়েক সেকেন্ডের জন্য বিদ্যুতের চেহারা দেখিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা লুকিয়ে রাখার মত ঘটনা এখন গ্রাহকদের কাছে পরিচিত কাহিনীতে রূপ নিয়েছে। এমন ঘটনা দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকলে বিদ্যুৎ বিভাগের অভিযোগ কেন্দ্রের নম্বরগুলো বন্ধ হয়ে যায়। আবার কখনো কখনো খোলা থাকলেও রিসিভ হয়না বা নম্বর ব্যাস্ত করে রাখেন তারা। আবার রিসিভ হলেও জবাবটা এমন আসে যে, তাদের কিছু্ই করার নেই। মেইন লাইনে ফল্ট। কাজ চলছে। অথবা নিয়ম মত লোডসেডিং চলছে। অথবা জাতীয় গ্রিডের সমস্যা। এমন ঘটনার অমন জবাব কিংবা ঘটনা যাই ঘটুক আর জবাব যাই আসুক, ফলাফল তথৈবচ। বরাবরের মত দিবারাত্র ২৪ ঘন্টার মধ্যে সামান্য সময় বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। অন্যথায় অপেক্ষার পালা সহ্য করতে হবে। আশাশুনির বিদ্যুৎ গ্রাহকরা সত্যি চরম বিপত্তির মধ্যে রয়েছে। তারা কোন ব্যাখ্যায় বিশ্বাস রাখতে পারছেনা। তারা বিদ্যুৎ দেখতে চায়। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ চুলচেরা হিসাব করে দেখবেন কি? অবস্থার অবনতি বৃদ্ধি না ঘটিয়ে এর থেকে পরিত্রান চায় দুর্ভাগা আশাশুনির বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!