Logo
শিরোনাম :
মেয়ে হয়েও করোনা আক্রান্ত রোগীকে বাঁচাতে নৌকায় অক্সিজেন নিয়ে ঝালকাঠির ঐশী ঘুমধুমে পাহাড়ী ঢালে মাছ চাষী করে মাথায় হাত ছৈয়দুল বশরের! শিবগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু ঘুমধুমে টানা বর্ষণে ক্ষতিগ্রস্থদের খাদ‌্য ও চিকিৎসা পথ্য সামগ্রী দিলেন ওসি আলমগীর হোসেন মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে টেলি সেবা উদ্বোধন শার্শার নিজামপুরে ২০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শার্শায় অসহায় আজগর আলী দম্পতিকে সাহায্য করলেন উদ্ভাবক মিজান স্লুইচ গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। সবাই প্রার্থনা করুন,বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হবে ইনশাআল্লাহ ! ভয়াবহ বন‌্যায় প্লাবিত ঘুমধুম এলাকা; ব‌্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা বগুড়ার আদমদীঘিতে প্রবাসীর স্ত্রী সাথে পরকিয়ায় স্থানীয়দের হাতে আটক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বৃষ্টিতে রাস্তার বেহাল দশা; সচেতন মহলের দাবি দ্রুত সংস্কারের

ফয়সাল আজম অপু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

শুরু হয়েছে আষাঢ় মাস। ১৬ জুন বুধবার ভোর থেকেই মেঘলা আকাশ, গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শিবগঞ্জ, ভোলাহাট, গোমস্তাপুর (রহনপুর), নাচোল ও সদর উপজেলাতেও একই অবস্থা। আর এই বৃষ্টির পানিতে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে মানুষ। ক্ষতি হচ্ছে রাষ্ট্রের সম্পদের। রাষ্ট্রের ক্ষতি মানে মহাসড়কের পাশে বিভিন্নস্থানে বৃষ্টির পানি জমে থাকছে। যানবাহন এর অপর চলাচল করলে নষ্ট হচ্ছে সড়ক। বিভিন্ন স্থানে আবার সড়কের পানি নামার সময় বড়বড় খাল বা গর্তেরও সৃষ্টি হচ্ছে। মঙ্গলবার রাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টির পানি জমে সড়কে ছোট ছোট দূর্ঘটনা অহরহ ঘটে চলেছে। বহলাবাড়ি মোড়ের আগে সড়কে পানি জমে থাকায় মোটরসাইকেল নিয়ে যাবার সময় ঐ এলাকার এক যুবক পড়ে গিয়ে মারাত্বক আহত হন। তার দাবি সড়কে পানি না জমলে পড়ত না সে। এমন নজির ঘটনা হচ্ছে সড়কে।

রাণীহাটি এলাকার রিকশা চালক মমিন জানান, সকালে রামচন্দ্রপুর হাটে যাবার সময় সড়কের ধারে জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে চাকা পড়লে একটি চাকার ক্ষতি হয়। ৬০০ টাকা লাগে ঠিক করতে। দিনের সব রোজগার শেষ। মনে করেছিলাম পানি জমাস্থান সড়ক ভাল।

পুলিশ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে শিবগঞ্জ ফেরার পথে দেখলাম বৃষ্টির পানিতে রাস্তা সয়লাভ। মহাসড়কের অধিকাংশ জায়গা ভেংগে খানাখন্দে ভরে গেছে। তিনি এজন্য অপরিকল্পিত রাস্তা তৈরি, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রকৌশলী, ঠিকাদার এবং আশেপাশের বাড়ি ওয়ালাদের দায়ী করেন। সেই সাথে স্থানীয়দের সকলকে সচেতন হতে বলেন।

এই সমস্যার বিষয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা আফরীন ঝিনুক এ প্রতিবেদককে দুপুর ৩ টার দিকে জানান, মহাসড়কের পাশে বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টির পানি জমে চলাচলে সমস্যা সৃষ্টি হয় এবং সড়কেরও ক্ষতি হয়।

আমাদের তরফ থেকে তদারকির কোন কমতি নেই সড়ক নিরাপদ রাখতে। এরই কিছুদিনের মধ্যে ১০ এর অধীক স্থানে সড়কে ও সড়কের পাশে পানি জমলে আমরা সেটা নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করি। আমাদের লোকবল ও গাড়ি নিয়ে গিয়ে পানি জমা স্থান কেটে পানি নামার ব্যবস্থা করেছি যেন সড়কের ক্ষতি না হয়। নির্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা আরও জানান, সড়কের পাশে দোকান মালিক বা বিভিন্ন বাসাবাড়ির মালিকগণ নিজেদের স্বার্থে পরিকল্পনা ছাড়া উঁচু নিচু করে মাটি বা বালু ফেলে সমান করে। এতে সড়কের যে স্তর পানি নামার তা বাঁধা পেয়ে পানি জমে যায় বৃষ্টির।

তিনি আরও জানান, আজকেই শিবগঞ্জে সড়কে পানি নামার জন্য সড়ক বিভাগ কাজ করতে গেলে স্থানীয়রা বাঁধা দেয়। মানুষ যদি সহযোগিতা না করে তাহলে সেটা যেমন রাষ্ট্রের ক্ষতি তেমনি সড়কেরও ক্ষতি। তাই সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরকে স্বাধীন মত কাজ করতে সকলের সহযোগিতাও চান নির্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা আফরীন ঝিনুক। এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার ওসি ফরিদ হোসেন জানান, সরকারের মোড় থেকে শুরু করে শিবগঞ্জ পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গার মহাসড়কের পাশে পানি জমছে। এতে যেমন চলাচল বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে ঠিক তেমনি সড়কেরও ক্ষতি হচ্ছে। যার ফলে ছোটখাটো দূর্ঘটনাটা ঘটছে। আজ সরেজমিনে সড়কে এই চিত্র দেখেছি। আশা করি বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট বিভাগ গুরুত্বসহকারে দেখবে। কাজেই এলাকার মানুষসহ সকলেই রাষ্ট্রের সম্পদ তথা চাঁপাইনবাবগঞ্জের সম্পদ মহাসড়কগুলো যাতে ভাল থাকে নষ্ট না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!