Logo
শিরোনাম :
চাঁপাইনবাবগঞ্জ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ও ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত কলারোয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের মানসম্মান রক্ষায় সাধারণ ডায়েরী উজিরপুর উপজেলার প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের স্মরণে শোক সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত রূপগঞ্জে ৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষনের পর হত্যা; খুনি গ্রেফতার শার্শায় নৌকার মনোনয়ন জেরে হামলা: ইউপি সদস্যসহ আহত ২০ রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি কলামিস্ট মীর আব্দুল আলীমের পিতৃবিয়োগ চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাটে ফায়ার সার্ভিসের অনন্য দৃষ্টান্ত ; জীবন বাঁচালো শালিক পাখির পটুয়াখালীর দশমিনায় ছাত্রদলের কর্মিসভা অনুষ্ঠিত আহমদিয়া ডলমপীর (রাঃ) সিনিয়র মাদ্রাসায় বার্ষিক ঈদে মিল্লাদুদ্নবী (সাঃ) সম্পন্ন মধুপুরে আনারস ও পেয়ারা প্রক্রিয়াজাতকরণে উদ্বুদ্ধ করার জন্য প্রশিক্ষণ

এক লক্ষ টাকায় বাঁচতে পারে ক্যানসারে আক্রান্ত চম্পার জীবন

মো: আজিজুল ইসলাম(ইমরান)
মাত্র এক লক্ষ টাকায় বাঁচতে পারে জীবন যুদ্ধে হার না মানা বেষ্ট্র ক্যানসারে আক্রান্ত চম্পার জীবন। সমাজের আর পাঁচ জন মানুষের মত স্বাভাবিক জীবন যাপন করছিল চম্পা(৩২)। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে অসহায় ভেন চালক বাবার একমাত্র এই মেয়েটির শরীরে তলে তলে বাসা বেধেছে মরনব্যধি ক্যানসার। যখন বুঝতে পেরেছে তখন অনেক দেরী হয়ে গেছে। এক মাত্র অবুজ শিশু কন্যা নুসরাত জাহান খুশির(৮) জন্য হলেও বাঁচতে চায় এই মা। অবুজ শিশু খুশি (৮) শুধু ফেলফেলিয়ে তাকানো ছাড়া যেন কিছুই বোঝে না। তার মায়ের কি হয়েছে, কেন হয়েছে, এখন কি করতে হবে এমন বাস্তবতাবাদী প্রশ্নগুলো তার কাছে এখনও অপরিষ্কার। তবে চোখের কোনে দিনের বেশির ভাগ সময়ে উকি দেয় অজানা ভয়ে বের হওয়া মুক্তা দানার মত অশ্রæ কনা। মানুষের মুখে শুনেছে এই রোগ হলে নাকি মানুষ বাঁচে না। তাই মাকে বাঁচানোর অব্যক্ত আকুতি নিয়ে হজির প্রতিবেদকের সামনে। শিশুটির কথায় প্রতিবেদকের চোখেও মনের অজান্তে দেখা দেয় অশ্রæ নামক পানি। চম্পা(৩২) সাতক্ষীরা সদরের রসুলপুর এলাকার হেদায়েত আলির এক মাত্র কন্যা। তার স্বামী হাবিবুর রহমান সামান্য বেতনে একটি বেসকরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। মরণব্যধি ব্রেষ্ট ক্যা¯œারে আক্রান্ত নিজের স্ত্রীকে চিকিৎসা করা তার পক্ষে একেবারে অসম্ভব বললেও ভুল হবে না। নিজের শেষ সহায় সম্বল গুলো বিক্রি করে ও মানুষের সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে ইতিপূর্বে তার স্ত্রীর চিকিৎসা করিয়ে এখন সে নিঃস্ব । গত ইং ২৪/৮/২০২০ তারিখে অপারেশন করিয়ে ইতিমধ্যে রোগীর বাম স্তন কেঁটে বাদ দেয়া হয়েছে। দেয় লেগেছিল ৬ টা কেমখেরাপি। যার প্রতিটার মূল্য ছিল ৩০০০০ টাকা ছিল। ধার দেনা করে, মানুষের কাছে চেয়ে সে যাত্রায় পার হলেও আবার অসুস্থ হতে শুরু করেছে চম্পা। লাঞ্চে জমছে পানি, হাত পা ফের ফুলতে শুরু করেছে, হাঁটা চলা বন্ধ, পড়ে গেছে মাথার সকল চুল। ডাক্তারের পরামর্শ, দিতে হবে এখনও অন্তত ৪ টা কেমথেরাপি। যার প্রত্যেকটার মূল্য প্রায় ৩৩০০০ হাজার টাকা। তবে ভেন চালক বাবা ও তার স্বামীর পক্ষে এই টাকা যোগাড় করা একেবারে অসম্ভব। উল্লেখ তার ভেন চালক পিতা গত দুই মাস আগে থেকে বাম পায়ের হাটুতে গেংগ্রিন আক্রান্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। তার নিজের চিকিৎসা ও সংসার খরচ চালনোই এখন অসম্ভব। এ অবস্থায় বাঁচার তাগিদে সমাজের মানুষের কাছে আর্থিক সাহায্যের আবেদন করেছে সে। মেয়েটি বর্তমানে খুলনা সন্ধানী হাসপাতালের ডাক্তার মিনাল কান্তি সরকারের কাছে চিকিৎসাধিন। সমাজের বিত্তবানরা যদি একটু এগিয়ে আসে তবে বেঁচে যেতে পারে একটি মা। অবুজ শিশু খুশি(৮) ফিরে পাবে তার জীবনের খুশি। চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের প্রয়োজনে স্বরজমিনে অথবা তাদের ব্যবহৃত বিকাশ নম্বার ০১৭১৫-৬০৯৭৭১ যোগাযোগ করার আকুতি এই অসহায় পরিবারের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By ThemesWala.Com
error: Content is protected !!